2024 Top Bengali Sad Status – 2024 বাংলা দুঃখের স্ট্যাটাস

“আমি চাই তুমি সব সময় সুখে থাকো !
কষ্ট যেন তোমাকে স্পর্শ না করে !
আমি জানি না পাওয়ার কি বেদনা ,
অনুভবও করতে পারি,
একাকিত্বের যন্ত্রনা!
আমি জানি অশ্রু ভেজা নয়নে কিভাবে হাসতে হয়।
আমি কষ্টকে আপন করে নিয়েছি।
তুমি পারবেনা সহ্য করতে আমার মত করে !
তাই তুমিই সুখে থেকো তোমার কষ্টগুলো আমাকে দিয়ে। “

“আমি দাড়াবনা আর কখনো তোমার পথ আগলে,
আমি চলে গেছি তোমার থেকে অনেক দূরে,
তুমি আর জানতে চেওনা আমি কেমন আছি,
দূর থেকে শুধু বলে যাব,
“আজো তোমায় ভালোবাসি””

“আমার ভালোবাসায় কোনো জটিলতা ছিলো না____
জটিলতা ছিলো তোমার মনের ভিতরে____
ভালোবাসা আমায় ছেরে চলে যায় নি____
তুমি আমাকে ছেরে চলে গেছো____”

“তোমাকে হারানোর ভয় ছিলো,
এখন আমার আর সেই ভয় নেই____
কারন তুমি তো এখন আমার নও,
তুমি হারিয়ে গেছো আমার জীবন থেকে____
এখন আর আমি তোমাকে হারানোর ভয় করি না____”

“বেশীরভাগ মানুষই নিজেকে দুঃখী ভাবতে পছন্দকরে।
যা কিছু মানুষকে কষ্ট দেয়, মানুষ তার পিছনেই ছুটে।
যে তাকে ভালোবাসে মানুষ তাকেই এড়িয়ে চলে…
এবং যে তাকে এড়িয়ে চলে মানুষ তাকেই কাছে পেতে চায়…
কারণ মানুষ কষ্ট পেতে ভালোবাসে…!!!”

“জীবনে প্রথম একজন আমাকে,
খুব ভালবেসে ফেলেছে ..
সে নাকি আমাকে ছেড়ে যাবে না ..
আমি ছাড়া সে নাকি মূল্যহীন ..
আমাকে ছাড়া সে অর্থহীন ..
আর সে হল ” কষ্ট”

“তোমাকে বলছি______
আমার দেওয়া ভালোবাসা ফেরত দাও___
তোমার দেওয়া কস্ট গুলো ফেরত নাও___
তোমার দেওয়া সৃতি গুলো মুছে দিয়ে যাও___
আমি মুক্তি চাই______”

“তুই তোর মতো করে ভালোবাসিস অন্য কাউকে আজ,
আমি আমার থেকে মুক্তি দিলাম স্বপ্ন নিয়ে যাস…!
অন্য আকাশে উড়ে দেখিস সুখটা কাকে বলে,
ক্লান্ত হলে ফিরে আসিস আমার চেনা ঘরে…!
কখনো যদি চোখের পাতা ভিজিয়ে যায় জলে,
বুঝতে পারবি পাঁজর ভাঙ্গার কষ্ট কাকে বলে….!!”

“বৃষ্টিকে যদি ভালোবাসতাম হয়তো এতো জল উপহার পেতাম না,
যত জল পেয়েছি তোমাকে ভালোবেসে।
বুঝতে পারিনি, এত বেশি মেঘ ছিল তোমার আকাশে।
সত্যিই বড় বোকা ছিলাম, আর আজও বোকাই রয়ে গেলাম।
অপেক্ষায় আছি,অপেক্ষায় থাকবো।
যত দিন বেঁচে থাকি, তোমায় মনে রাখবো……..”

“শত দুঃখ কষ্টের মাঝে নিজেকে হারিয়ে ফেলেছি।
আমাকে আমি আর চিনতে পারিনা,
আশাগুলো ধুসর হয়ে গেছে।
মনে হয় ঠিকানা হীন পথিক নিজেকে,
হয়তো এখন তুমি প্রতিদিনই নতুন নতুন স্বপ্ন দেখো,
সাজো নতুন সাজে।
ভুলেও মনে করোনা আমায়,
নিয়তির লেখা আজ নিয়েছি মেনে,,,
আমি চাই তবুও সুখে থাকো তুমি !!”

“চলে যাবে যখন যাও , তোমাকে বাঁধা দেবো না ।
তোমাকে মুক্তি দিলাম ..
তবে তুমি এইভাবে কষ্ট দেবে আমায় ভাবিনি ।
ভাবিনি অকারণে চলে যাবে ।
তবে জেনে রেখো আমি তোমাকে ভালবাসি,
ভালবেসে যাবো সারাটি জীবন ।
আর সে কারনেই আমি তোমার অপেক্ষায় থাকবো ।”

“তুমি বলে ছিলে আমায় এ জীবনে যদি তোমার না হই,
তাহলে অন্য কারো হবো না ।
কিন্তু , কথাটা আজ সময়ের স্রোতে হারিয়ে গেছে মনের গহীনে ।
হাজারো কথার ভীড়ে অথবা, নতুন কোনো সম্ভাবনায় ।
কিন্তু , আমার মনের আঁকাশে এখনো অস্তিত্ব আছে কথা গুলোর ।
থাকবেই বা না কেনো ?
আমি যে শুধু তোমাকেই ভালোবেসেছি, আর কাউকে না !!”

“দুঃখের মাঝেও একটা সুখের অনুভূতি থাকে,
তা হয়তোবা সুখে থেকে কেউ কল্পনাও করতে পারবেনা।
কারণ মানুষ দুঃখে থেকে সুখকে উপলদ্ধি করতে পারলেও,
সুখে থেকে কিন্তু কেউ দূঃখকে সেভাবে উপলদ্ধি করতে পারেনা।
আর মানুষ যখন কষ্টের মাঝে সুখকে কল্পনা করে,
তখন তার মনে যে অনুভূতির সৃষ্টি হয় তা কখনও কখনও সুখের চেয়েও মধুর।”

“কষ্ট বুকে চেপে একলা থাকি,,
কান্নার নোনাজল অধরে মাখি,,
লাভ কি বৃথা মনে কষ্ট চেপে,,
আয় না ফিরে তুই আমারি বুকে..!!”

“মাঝে মাঝে মনে হয়,
তোমার সাথে আমার হৃদয়টা পাল্টাপাল্টি করি,,
যাতে তুমি বুঝতে পারো,
আমি তোমাকে কতোটা ভালোবাসি..
আর আমি বুঝতে পারি,
তুমি আমাকে কতোটা ঘৃণা করো..!!”

“শ্রাবনে ওই বৃষ্টি ধারায়,
আজ শুধু তোমাকে খুঁজে বেড়াই.
যদিও তুমি অনেক দুরে,
তবুও রেখেছি তোমায় মন পাঁজরে.
নীরবে তোমায় মিস করি সারাক্ষণ,
অথচ তা তোমার কাছে আজও গোপন..!!”

“ভালবাসা হলো এমন একটি মায়া,
তুমি যত দুরে যাবে যাবে ততই কাছে টানবে,
যত ভুলে যাবে ততই মনে পড়বে,
আর যতটুকু হাসবে তার থেকে বেশি কাঁদবে”

“আবেলায় পেলাম তোমায় এখনি কেন যাবে হারিয়ে?
কি করে বল রব একা?
ফিরে দেখো এখনও আছি দাড়িয়ে।।
কেন হটাৎ তুমি এলে নয় কেন তবে পুরটা জুড়ে ?
আজ পেয়েও হারানো যায় না মানা
বাঁচার মানে টা যাবে হারিয়ে।
শুনছো কি তুমি আমায়?”

“”আমি তোমাকে ভালোবাসি” কথাটা খুব হালকা নয়।
কিছুদিন চোখে চোখ রেখে, হাত ধরে,
স্বপ্ন দেখেই বলে ফেলা যায়না – আমি তোমাকে ভালোবাসি।
প্রথম ভালো লাগা, প্রথম দেখা, প্রথম স্পর্শ
এসব ভালোবাসার দিকে চলে যাওয়া বিভিন্ন রাস্তা ছাড়া আর কিছুই নয়।
একদিন সব রাস্তা মিলে গেলো, যোগ হলে একখানে।
সেইখানে দাঁড়িয়ে যদি কাউকে বলা হয়- আমি তোমাকে ভালোবাসি।
ঐ ভালোবাসা ফেরানোর শক্তি কোন মানুষের নেই।
এমনও হয়, কখনো খুব চেষ্টা করেও মুখ ফুটে বলতে যায় না ভালোবাসার কথা,
অথচ ভেতরে একটা পাখি প্রচন্ড অস্থিরতায় ছটফট করে।
এই পাখিটা কোন পাখি? এই পাখিটা মনপাখি।
একটা মনপাখি পোষার জন্য যথেষ্ট আকাশ আমাদের বুকে নেই,
তাই এত কষ্ট।”

“আমি জানি তুমি ফিরবেনা আর ধরবেনা এ হাত!!
তবু অপেক্ষায় থাকি, থাকতে ভাল লাগে।।
তুমি হয়তো জানো না,
কিছু পাবো না জেনেও অপেক্ষা করার মাঝে
অনেক আনন্দ আছে, আছে একটা স্বস্তি !!
কারন, অন্তত আর হারানোর ভয় থাকে না
সেই অপেক্ষার চিন্তার মাঝে !!”

“পৃথিবীর সবচেয়ে কঠিন কাজ হল মানুষের,
মনের সত্যিকারের ভালবাসা অর্জন করা’
তাই কখনো যে মানুষটা আপনাকে তার সেই,
বিশ্বাসপূর্ণ সত্যিকারের ভালবাসাটা দিয়ে দিল-
তাকে কখনো অবহেলা করবেন না ।।
আপন মানুষটাকে দূরে ঠেলে দিবেন না।।
তখন তার মনের মৃত্যু হবে নিশ্চিত !!
মনে রাখবেন- আপনার চারপাশে ভালবাসার
অভাব নাও থাকতে পারে,
তবে সত্যিকারের ভালবাসার এই পৃথিবীতে বড়ই অভাব।”

“সবার মাঝে কাউকে আলাদা করে বিশেষ কেউ বলে ভাবতে যাবেন না।
ভাবতে গেলেই দেখবেন সে আপনাকে সবার দলে রেখে ভাবছে।
আর এই কষ্ট টা আপনাকে কখনো ভালো থাকতে দিবে না। কখনো না”

“আমার প্রথম দেখা বৃষ্টির জলে,
ভাসিয়েছি ভেলা খেলার ছলে,
সেই জল গেছে মিশে কোন নদীতে
গেছে হারিয়ে কোন সাগরে……
মাঝিরে ও মাঝিরে, দেখেছো কি তুমি তারে??
নৌকো আমার ছেলেবেলার, রঙিন কাগজের….!”

” প্রতিটা মানুষের জন্যই, কখনো না কখনো জয় আসে,
আজ তুমি যাকে হারাবে, কখনো না কখনো তার কাছেই
তোমার হারতে হবে, প্রত্যক্ষভাবে না হলেও পরোক্ষভাবে…
প্রকৃতি কাউকে কখনো ঠকায় না !!!”

“যখন তোমাকে খুব মিস করি,,
তখন ঐ আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকি..
জানি সেখানে তোমাকে দেখব না..
কিন্তু এই ভেবে সান্তনা পাই যে,,
দুজনে এক আকাশের নিচেইতো আছি..”

“কারো কাছে গিয়ে বারবার শুনিয়ে,
বিদায় বলার অর্থ এই না যে আমি চলে যাচ্ছি।
বারবার বিদায় বলার অর্থ হলো ,
“আমি যাচ্ছি তুমি পিছন থেকে হাতটা ধরে আমাকে থামিয়ে দিয়ো”
কেউ মনে কথা বুঝতে পেরে হাত ধরে কাছে টানে।
কিছু অভিমানী আছে যাদের মনের কথা মনে রয়ে যায়।
পিছ থেকে দাড়িয়ে দীর্ঘশ্বাস।
হাত টা বাড়িয়ে তার হাতটা ধরা হয় না”

“জীবনটা হল রেল লাইনের উপর দুজন হাত ধরে হাটার মত…
একজন হাত ছেড়ে দিলে,
অন্য জনের ভারসাম্য বজায় রাখা কঠিন হয়ে পড়ে…!!!
যদি আপনি হাত ছেড়ে দেন??
তাহলে আপনি পরাজিত… !
আর যদি অন্যজন হাত ছেড়ে দেয়??
তাহলে আপনার বিশ্বাস পরাজিত…”

“পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ পাগলামি হলো কাউকে ভালোবাসা,
কারণ ভালোবাসার আগে আমরা জানি,
ভালোবাসাই প্রচুর পরিমান কষ্ট আছে,
তারপরও আমরা সেই ভালোবাসার পিছে ছুটি,
আর জেনে শুনে কষ্টকে আপন করে নিই,
আর সেইটা হলো বড় পাগলামি…………”

“আমি তোমার মধ্য রাতে—ডুকরে কাঁদার কারণ,
আমি তোমার ‘সেই কথা’ যা—কাউকে বলা বারণ!
আমি তোমার ভাগ্য রেখা—আমিই সেটার গণক,
আমি তোমার প্রতি ফোঁটা—অশ্রু জলের জনক!”

“ভুল বুঝে দুরে থাকাটা একমাত্র সমাধান নয়,
ভুলের মাঝে লুকিয়ে থাকা অজানা,
কথা গুলো উদ্ধার করাটাই মুখ্য বিষয় !
মানুষ মাত্রই ভুল করে।
প্রকৃত বুদ্ধিমান সেই যে ভুল থেকে,
উত্তরণের পথ খুঁজে সমাধানের দ্বার প্রান্তে পৌঁছে।”

“পৃথিবীর প্রতিটা মানুষই অভিনয় করে।
কেউ নিজের সাথে কেউ অন্যের সাথে।
কেউ নিজেকে হাসাতে আবার কেউ, অন্যকে হাসাতে।
কেউ এই অভিনয় করে,
নিজের দুঃখ লুকাতে যেয়ে অথবা নিজেকেই দুঃখ দেয়ার জন্য।
আবার কেউ অন্যের দুঃখ ঘুচাতে অথবা অন্যকে দুঃখ দিতে।
তবে অভিনয় সবাই আমরা করছি আর করব এটা ঠিক।”

“আমরা মানুষরা নিজেই নিজেকে অসুখী মনে করি আর অসুখী করে ফেলি,
তার প্রথম আর প্রধান কারণ আমরা সর্বদা ব্যর্থতার হিসাব করি শুধু।
জীবনটাই যে মস্ত বড় পাওয়া এটা মৃত্যুর আগ মূহুর্ত ছাড়া
আমরা অধিকংশরাই বুঝতে পারি না।”

“মাঝে মাঝে তোর হাত টা ধরতে ইচ্ছে করে।
কিন্তু সাহস হয়না…মাঝে মাঝে তোর সাথে হাঁটতে ইচ্ছে করে,
কিন্তু কখনই সময় হয়না।
মাঝে মাঝে তোর কবিতার সিক্ত নীলাম্বরী হতে ইচ্ছে করে,
কিন্তু বলতে পারি না। পারবোও না কখনো!
তুই তো জানিস,সেই ছোট্র বেলা থেকেই আমি বড্ড ভীতু।
তাই তুই সুযোগ দেওয়ার পরেও আমি পারিনি ইচ্ছে গুলো পূরন করতে।
সময় শুধুই ইচ্ছে গুলোকে চাপা দিয়ে রেখেছে সযত্নে,কিন্তু মুছে দিতে পারেনি মন থেকে!
তাই আমি প্রতীক্ষায় থাকি আবার কোন একসময়ে সেই সুযোগের…..”

“চেনা মুখগুলো রং পাল্টাচ্ছে…লাল থেকে নীল…
নীল থেকে সবুজ..হলুদ..কমলা..আকাশী..বেগুনী…ধূষর!
হাজারো রঙে বদলে যাচ্ছে তারা!
পাল্টে যাওয়া মানুষ একজন নয়,,দলে দলে সবাই পাল্টাচ্ছে!
সাদা…কালো থেকে রঙিন হচ্ছে!
আমার কষ্ট হচ্ছে তাদের বদলে যাওয়া দেখতে….
কারন ধীরে ধীরে তারা অপরিচিত হয়ে উঠছে আমার কাছে!
তবুও আমি মুগ্ধ হয়ে রঙের খেলা দেখছি!
মাঝে মাঝে কষ্টটাকেও উপভোগ করতে জানতে হয়!”

আরও বাংলা কষ্টের শায়রি ও আবেগী কষ্টের স্ট্যাটাস নীচে পরবর্তী পেজে ক্লিক করে দেখুন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *