সুরক্ষিত থাকতে চান? তাহলে এখনি ফেসবুক থেকে ডিলিট করুন এইগুলি, পড়তে পারেন বিপদে

বিশ্বের সবথেকে বৃহৎ সোশাল নেটওয়ার্কিং ওয়েবসাইট ফেসবুক এখন কি ওতটা সুরক্ষিত ? না কি আপনার সমস্ত তথ্য সুরক্ষিত ? এখন প্রায় এটা শোনা যায় জে ফেসবুক এর ডাটা লিক হয়ে যাচ্ছে আর মানুষের গোপন তথ্য চুরি করছে অপব্যাবহার, আর ফেঁসে যাচ্ছেন সাধারণ মানুষেরা।

তাহলে বন্ধুরা যখন আপনারা জানেন না যে আপনাদের তথ্য সুরক্ষিত আছে কি না তাহলে আপনারা নিজেরাই নিজেদের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত করে নিন। আজ আমি আপনাদের জানাব কি করে আপনারা আপনাদের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত করে রাখবেন। তার ফলে আপনার তথ্য লিক হবে না।

সুরক্ষিত থাকতে চান? তাহলে এখনি ফেসবুক থেকে ডিলিট করুন এইগুলি, পড়তে পারেন বিপদে
সুরক্ষিত থাকতে চান? তাহলে এখনি ফেসবুক থেকে ডিলিট করুন এইগুলি, পড়তে পারেন বিপদে

1. ফোন নাম্বার ডিলিট করুনঃ

কোন ফেইসবুক অ্যাকাউন্ট এর তথ্য লিক হবার প্রধান কারণ হল এই ফোন নাম্বার, কারণ আপনারা জানেই এই ফোন নাম্বার দিয়ে আপনার এবং আপনার পরিবারের সমস্ত তথ্য বের করা কতটা সহজ। তাই সবার আগে আপনার ফোন নাম্বার ফেসবুক থেকে ডিলিট করে ফেলুন।

2. ফ্রেন্ডলিস্ট সুরক্ষিত করুনঃ

আপনার যে ফ্রেন্ডলিস্ট রয়েছে সেই ফ্রেন্ডলিস্ট লক করুন কারণ এই ফ্রেন্ডলিস্ট যদি সবাই দেখতে পায় তাহলে আপনার সঠিক পরিচয় পাওয়া সরল হয়ে যাবে। তাই এই কাজ আগে করে ফেলুন আর নিজের অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত করে ফেলুন।

3. জন্ম তারিখ বা গুরুত্বপূর্ণ তারিখ ডিলিট করুনঃ

আপনার অ্যাকাউন্ট এ দেওয়া আপনার জন্ম তারিখ আপনাকে বিপদে ফেলতে পারে, কারণ এই তারিখ দিয়ে আপনার সমস্ত পার্সোনাল তথ্য খুব সহজেই বের করতে পারে।

আর বন্ধুরা যদি কোন গুরুত্বপূর্ণ তারিখ আপনার অ্যাকাউন্ট এ দেওয়া থাকে সেই তারিখও ডিলিট করে ফেলুন।

4. লোকেশান (ফেসবুক এর সাথে যুক্ত) বন্ধ করুনঃ

যদি আপনার লকেশান ফেসবুক এর সাথে যুক্ত থাকে তাহলে এখনি এই লোকেশন সার্ভিস বন্ধ করে ফেলুন। কারণ আপনারা বুঝতেই পারছেন যদি আপনার লকেশান সব সময় শেয়ার হয় তাহলে আপনি কতটা বিপদে পড়তে পারেন।

5. পরিবারের মহিলা, বাচ্চা দের ফটো আগে ডিলিট করুনঃ

যদি আপনি আপনার পরিবারের সদস্য দের ফটো আপলোড করতে থাকেন তাহলে এই কাজ আগে বন্ধ করুন আর যদি আগে থেকে ফটো দিয়ে থাকে তাহলে তা ডিলিট করে ফেলুন, কারণ যারা আপনার ক্ষতি চায় তারা আপনার পরিবার কেউ টার্গেট করতে পারে।

6. বাড়ির ভেতরের সব জাইগার ফটো আপডেট করবেন নাঃ

যতটা পারবেন আপনার বাড়ির এবং বাড়ির আসে পাশের আন্তরিক জেইগার আপডেট বা ফটো না দেবার, কারণ যাদের মন্তব্য খারাপ থাকে তারা খুব সহজেই আপনার বাড়ির বিভিন্ন জাইগার তথ্য পেয়ে যায় এবং তাদের কাজে সুবিধা হয়ে যায়। আর এই তথ্য গুলি আপনি নিজেই তাদের দিয়ে দিচ্ছেন।

7. বাড়ির বাহিরে বা বেড়াতে যাবার তথ্য দেবেন নাঃ

আপনি যদি আপনার পরিবার নিয়ে কথাও যান সেটা ছুটির দিন হোক বা কোন পারিবারিক কাজে বা অন্য কথাও, কখনো এই তথ্য আপডেট করবেন না কারণ আপনার অনুপস্থিতি তে অনেক কিছু ঘটে যেতে পারে। তাই খেয়াল রাখবেন।

8. কোন টিকিট আপলোড করবেন নাঃ

আপনার ট্রেনের টিকিট হোক বা প্লেনের বোর্ডিং পাস এই গুলি কখনো আপলোড করবেন না, কারণ এর থেকে আপনার পার্সোনাল তথ্য বের করা সম্ভব আর আপনি কোথায় থেকে কোথায় যাবেন এই তথ্য কিছু খুবই সহজে পাওয়া যাবে। তাই এই কাজ করবেন না।

9. ব্যাঙ্ক বা আর্থিক তথ্য ভুলেউ দেবেন নাঃ

অনেক ফেসবুক ব্যাবহার কারিরা রয়েছে তারা নতুন ক্রেডিট কার্ড না এটিএম কার্ড পেলে ফেসবুক এ সেই কার্ডের ফটো আপডেট করে, কিন্তু বন্ধুরা আপনারা ভুলেউ এই কাজ করবেন না আপনার ব্যাঙ্ক বা আর্থিক সম্বন্ধে কোন রকম তথ্য দেবেন না। তা না হলে খুবই বিপদে পড়তে পারেন।

10. ফেসবুক এর প্রাইভেসি সেটিং সুরক্ষিত করুনঃ

ফেসবুক আপনাদের অনেক অধিকার দিয়ে থাকে যেখানে আপনারা আপনাদের নিজের মতো করে আপনার তথ্য সুরক্ষিত রাখতে পারেন, তাই আপনাদের এই অধিকার ব্যাবহার করা উচিত। ফেসবুক এর সেটিং এ গিয়ে আপনার তথ্য গুলি সুরক্ষিত করতে ভুলবেন না।

বন্ধুরা এই তথ্য কোনভাবে আপনাদের ভয় দেখানোর জন্য বা ফেসবুক ব্যাবহার না করার জন্য জানালাম না, আমার উদ্দেশ্য এটাই যে অবশ্যই ব্যাবহার করুন কিন্তু সাবধানে কারণ আপনার সুরক্ষা আপনারই হাতে। তাহলে বন্ধুরা ভালো থাকবেন সুরক্ষিত থাকবেন।

বন্ধুরা যদি আপনারা চান যে আপনাদের কাছের কেউ বা আপনার পরিবার সুরক্ষিত থাকুক তাহলে অবশ্যই এই তথ্য সকলের সাথে শেয়ার করুন।

যদি আপনাদের আমার এই তথ্য ভালো লেগে থাকে তাহলে সকলের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না। ধন্যবাদ।
বন্ধুরা বাংলা ভূমি ওয়েবসাইট আপনাদের জন্য সর্বদা নতুন নতুন তথ্য নিয়ে আসে তাও বাংলা ভাষাতে এবং খুব সরল কথায় আপনাদের বোঝানোর চেষ্টা করে থাকে। যদি আপনাদের আমাদের এই কাজ ভালো লেগে থাকে তাহলে সকলের সাথে শেয়ার করবেন। ধন্যবাদ।
পশ্চিমবঙ্গের সরকারি যোজনা এবং অন্নান্য তথ্যের জন্য আমাদের সঙ্গে থাকুন।

Leave a Comment