Poush Sankranti 2024: কিভাবে পালন করা হয় এই উৎসব? পিঠাপুলি রেসিপি

উৎসব আনন্দের শেষ নেই, আর সেই সমস্ত উৎসবকে ঘিরে রয়েছে অনেক কাহিনী, গল্প, লোককথা, যেগুলি হয়তো সবটা জানা নেই। কিছুটা জানা থাকলেও এর পিছনে অনেক কাহিনী আজও অনেকের অজানা।

একটি বিশেষ বাঙালি উৎসব হলো পৌষ পার্বণ অথবা মকর সংক্রান্তি। পৌষ সংক্রান্তি অথবা মকর সংক্রান্তি এই দুইটি নাম কিন্তু এক, একই উৎসব হিসেবে পালন করা হয়। তাছাড়া এটি নতুন ফসল তোলার একটি ফসলি উৎসব বলা যেতে পারে।

পৌষ সংক্রান্তি কিভাবে পালন করা হয় এই উৎসব? পিঠাপুলি রেসিপি
পৌষ সংক্রান্তি কিভাবে পালন করা হয় এই উৎসব? পিঠাপুলি রেসিপি

পৌষ সংক্রান্তি নিয়ে বিভিন্ন উৎসব আয়োজন এর শেষ নেই। তার পাশাপাশি বিভিন্ন রীতি নীতি, নিয়ম কানুন বিদ্যমান। বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন নামে পরিচিত এই উৎসব সকলের বাড়িতে আনন্দ বহন করে আনে।

ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে পৌষ পার্বণ বিভিন্ন নামে:

ভারতে বিভিন্ন ধর্মাবলম্বী এবং বিভিন্ন ভাষার মানুষের বসবাস। তেমনি ভারতে এই উৎসব অবশ্যই রাজ্য ভেদে নানা নাম দিয়ে চেনে সেখানকার স্থানীয় মানুষজন। জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝিতে এই উৎসব পালিত হয়, তবে এই দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এই উৎসবের বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য তার মেয়াদও কিন্তু আলাদা আলাদা হয়।

কোথাও কোথাও চার দিন পর্যন্ত এই উৎসব অনুষ্ঠিত হয়, এছাড়া বাংলার প্রতিটি ঘরে ঘরে পৌষ সংক্রান্তি, তামিলনাড়ুতে পোঙ্গাল, গুজরাতে উত্তরায়ন, কর্নাটকে মকর সংক্রমণ, অসমে ভোগালী বিহু এবং কাশ্মীরে শায়েন ক্রাত এমন সব নামে এই উৎসব পালন করে থাকেন সেখানকার স্থানীয় মানুষজন। মকর সংক্রান্তি কে ঘিরে উৎসব আক্ষরিক অর্থে একটি সর্বভারতীয় উৎসব। যা পৌষ পার্বণ অথবা পৌষ সংক্রান্তি নামে পরিচিত।

পৌরাণিক কাহিনী:

পৌষ সংক্রান্তিতে অন্যান্য পৌরাণিক কাহিনীর পাশাপাশি আরও একটি বিষয় জানা যায়। যেটি হল সূর্য এই দিন নিজের ছেলের মকর রাশির অধিপতির শনির বাড়ি এক মাসের জন্য ঘুরতে গিয়েছিলেন তাই এই দিনটিকে বাবা-ছেলের সম্পর্কের একটি বিশেষ দিন হিসেবেও ধরা হয়।

সূর্য এর দক্ষিণায়ন থেকে উত্তরায়ন:

এছাড়া মকর সংক্রান্তি থেকে অথবা পৌষ সংক্রান্তি থেকে শুরু হয় পরবর্তী ছয় মাস ধরে চলা সূর্যের উত্তরায়ন। তারপর শুরু হয় সূর্যের আবার দক্ষিণায়ন। উত্তরায়ণে উত্তর গোলার্ধের কাছাকাছি আসে সূর্য।

আমাদের দেশের বিভিন্ন রাজ্যে পৌষ সংক্রান্তি অথবা মকর সংক্রান্তি পালিত হয়, এই সময় অনেক জায়গায় যারা বাইরে কাজ করেন তারা কিন্তু ঘরে ফিরে আসেন। অনেক জায়গায় বন ফায়ার এবং ঘুড়ি ওড়ানোর প্রতিযোগিতা হয়। যেটা এই উৎসবের একটি বিশেষ অঙ্গ।

পৌষ সংক্রান্তি অথবা পৌষ পার্বণের বিশেষ বিষয়:

তবে মকর সংক্রান্তি অথবা পৌষ সংক্রান্তির মূল প্রথা হলো গঙ্গা স্নান, অন্ন দান করা এবং মকর সংক্রান্তি উপলক্ষে বিশেষ খাবার দাবার তৈরি করা ও পায়েস তৈরি করার প্রথাও রয়েছে। যা অনেক প্রাচীনকাল আগে থেকে চলে আসছে।

অন্য রাজ্য গুলির কোথাও দই চূড়া, কোথাও বা খিচুড়ি, কোথাও বা তিলের তৈরি মিষ্টি তৈরি করা হয়। সেগুলি সকলের মাঝে বিতরণ করেও কিন্তু খুবই সুন্দর একটা উৎসবের আমেজ তৈরি করা হয়।

পৌষ পার্বণের এই বিশেষ দিনে তৈরি করুন বিশেষ কিছু পিঠাপুলি:

১) পাটি সাপটা: 

উপকরণ: এই পিঠে তৈরী করতে যে উপকরণ গুলি লাগবে সেগুলি হল চালের গুঁড়ো, সুজি, ময়দা, গুড় অথবা চিনি, তরল দুধ অথবা পাউডার দুধ।

যেভাবে বানাবেন: প্রথমে একটি বাটিতে ময়দা, চালের গুঁড়ো আর সুজি নিয়ে নিন। এবার এটার ভিতর তরল দুধ দিন, যদি তরল দুধ না থাকে তাহলে পাউডার দুধ এর সাথে জল মিশিয়ে সেটি তরল দুধে পরিণত করতে পারেন। মিশ্রণটি সাবধানে করুন কারণ মিশ্রণে যেন কোনো ফোলা অথবা ঢেলা না থাকে।

এরপর একটি ননস্টিক প্যান্ গরম করুন সেখানে সামান্য তেল দিন। এতে তেল চারিদিকে ছড়িয়ে যায়, আর আপনার পিঠে খুবই সুন্দর ভাবে উঠে আসে। এবার সেটির সটান ভাবে ভরাট করে পাকিয়ে নিন, হালকা বাদামী রং হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।

এরমধ্যে দুধের ক্ষীর দিতে পারেন তার জন্য আপনাকে দুধ ও গুড় অথবা চিনি জ্বাল করে গাঢ় করে আঠালো করে নিতে হবে। এরপর পিঠেটি সেই ক্ষীরের উপরে সুন্দরভাবে পাকিয়ে নিন, তারপরে ঠাণ্ডা অথবা গরম পরিবেশন করুন।

২) দুধ পুলি: 

উপকরণ: এই পিঠে বানাতে যা লাগবে সেগুলি হল চালের আটা, গমের ময়দা, দুধ, নারকেল গুঁড়ো, চিনি অথবা গুড়, এলাচ, বাদাম

যেভাবে বানাবেন: চালের আটা অথবা গমের ময়দা সেটা উষ্ণ গরম জল দিয়ে অথবা গরম জলের মধ্যে আঠা দিয়ে সেটাকে সুন্দর করে হালকা আঁচে আটার মন্ড তৈরি করতে হবে।

এরপর ছোট ছোট ভাগে ভাগ করে সেগুলি সুন্দর ছাঁচ তৈরি করে তার মধ্যে আগে থেকে বানানো নারকেল এর পুর নারকেল গুঁড়ো, চিনি অথবা গুড়, এলাচ একসাথে ততক্ষণ পর্যন্ত রান্না করতে হবে যতক্ষণ না পর্যন্ত সেটি আঠালো আর বাদামী রং ধারণ করছে।

সেই নারকেলের পুর দিয়ে আটার মন্ড টিকে সুন্দর করে মুড়ে সুন্দর একটা ডিজাইনের বানাতে হবে। এগুলি হয়ে গেলে ঘন দুধ তাতে স্বাদমতো চিনি ও এলাচ ফেলে দিয়ে ঘন করে ফোটাতে হবে।

এরপর আস্তে আস্তে বানিয়ে রাখা পিঠে গুলি সেই দুধের মধ্যে দিয়ে দিতে হবে। খানিকক্ষণ ফোটানোর পর যখন দুধ আরো বেশি ঘন হয়ে যাবে, তখন সামান্য কিছু বাদাম কুচি ছড়িয়ে নামিয়ে নিন। গরম অথবা ঠান্ডা দুটো ভাবেই পরিবেশন করতে পারেন।

৩) গোকুল পিঠে: 

উপকরণ: চিনি, নারকেল গুঁড়ো, খোয়া, চালের আটা, সোডিয়াম বাই কার্বনেট, ঘি, নারকেলের দুধ

যেভাবে বানাবেন: প্রথমে চার কাপ জল দিয়ে দু কাপ চিনি গরম করে চিনির সিরাপ তৈরি করে নিন, এটি ঠান্ডা হতে দিন। নারকেল খোয়া এবং দুই টেবিল চামচ চিনি একসাথে মাঝারি আঁচ ভাজুন, একটানা নাড়তে থাকুন, পিঠে তৈরীর জন্য মিশ্রণটি রোল করুন এবং তালুর মাঝে রাখুন, আটা বাকি জল, সোডিয়াম বাই কার্বনেট এবং ঘি মিশিয়ে ব্যাটার তৈরি করুন।

ব্যাটার তৈরি করা হয়ে গেলে তার মধ্যে গরম ঘি এবং নারকেল দুধ দিয়ে রোল করে রাখা পিঠে গুলি দিয়ে নাড়তে থাকুন। সোনালী বাদামি হওয়া পর্যন্ত ভালোভাবে ভাজুন এবং চিনির সিরাপে ডুবিয়ে নিন।

৪) রাঙা আলু অথবা লাল আলুর পিঠে:

উপকরণ: মিষ্টি আলু অথবা লাল আলু, মৌরি, চিনি, ময়দা, নারকেল, খেজুর গুড়

যেভাবে বানাবেন: প্রথমে লাল আলু অথবা রাঙা আলু সেদ্ধ করে খোসা ছাড়িয়ে মৌরি এবং চিনি মিশিয়ে ময়দা মতো তৈরি করুন। তারপর এর মধ্যে একটি চিনির সিরাপ তৈরি করে নিতে হবে আপনাকে এবং এক পাশে সেটি রেখে দিন।

এছাড়া গ্রেট করা নারকেল এবং খেজুর গুড় প্রস্তুত করে রাখুন। মৌরি, চিনি ও লাল আলু মিশিয়ে যে ময়দা তৈরি করা হয়েছে, তা কোন সুন্দর ডিজাইনের ছাচে ফেলে বিভিন্ন আকার দিতে পারেন। তারপর সেগুলি হালকা তেলে ভেজে নিন আর তরল গুড় এর সাথে পরিবেশন করুন।

⭐ বিভিন্ন পিঠে পুলির সাথে সাথে এই উৎসব আরো অন্যান্য রীতি নিয়ম মেনে পালিত হয় প্রতিটি বাঙালির ঘরে ঘরে। শুধু তাই নয়, আরো অনেক ধরনের পিঠে রয়েছে যেমন ধরুন নারকেল পিঠে, ভাপা পিঠে, তেলের পিঠে অথবা পাকান পিঠে অনেকে বলেন, চিতই পিঠে ইত্যাদি।

মা লক্ষ্মীর আরাধনা, সকল পূর্বপুরুষ দের উদ্দেশ্যে নতুন শস্য অর্পণ করা, নতুন চালের ভাত ও তরকারি রান্না করে উৎসর্গ করা, সবকিছু এই পৌষ পার্বণের এক একটি বিশেষ অঙ্গ বলা যেতে পারে।

তার পাশাপাশি অনেক উৎসব মেলার মধ্যে দিয়েও এ পৌষ পার্বণ পালন করা হয় বিভিন্ন জায়গায়। এই উৎসব এক শুভ সময় এর সূচনা। আর এই দিনটি এতটাই শুভ যে, প্রতিটি শুভ কাজ এই দিনে শুরু করলে তা খুবই সুন্দর ভাবে সু-সম্পন্ন হয় বলে মনে করা হয়।

Leave a Comment