শারীরিক প্রতিবন্ধীদের শিক্ষা ও প্রশিক্ষনের জন্য লোন চাকরি পাবার পর মেটাতে হবে লোন

অর্থের কারণে শারীরিক প্রতিবন্ধীদের শিক্ষা যাতে থেমে না যায় তার জন্য এই বিশেষ লোনের ব্যবস্থা আছে। যেখানে ভারতে এবং বিদেশে স্বীকৃতি পাওয়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানপড়াশুনা করার জন্য এই লোনের ব্যবস্থা আছে।

শারীরিক প্রতিবন্ধীদের শিক্ষা ও প্রশিক্ষনের জন্য লোন চাকরি পাবার পর মেটাতে হবে লোন
শারীরিক প্রতিবন্ধীদের শিক্ষা ও প্রশিক্ষনের জন্য লোন চাকরি পাবার পর মেটাতে হবে লোন

এই লোনের অন্তর্গত টিউসন ফিস এবং অন্নান্ন ফিস, মেন্টেনেন্স কস্ট, বই এবং অন্নান উপকরণের জন্য যেই খরচাগুলি হয়ে থাকে সেই খরচ পূর্ণ করার জন্য এই লোন তৈরী করা হয়েছে।

কারা নিতে পারে এই লোন :

এই লোন শুধুমাত্র শারীরিক প্রতিবন্ধীদের জন্য। যে কোনো ভারতীয় নাগরিক এই লোনের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

যে সমস্ত শারীরিক প্রতিবন্ধীরা রয়েছেন এবং তাদের শারীরিক প্রতিবন্ধীতা ৪০% বা তার থেকে বেশি তারাই এই লোনের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

এই লোনে প্রতিবন্ধী ছাত্র এবং তার অভিভাবক দুজনকেই সংযুক্তভাবে লোন গ্রহণকারী হিসাবে নেওয়া হবে।

কত টাকা লোন পায় যাবে :

এটা প্রথমেই দেখা হবে যে প্রতিবন্ধী ছাত্র এবং তার অভিভাবক লোন মেটাবার জন্য কতটা সামর্থ, সেই অনুসারে লোনের অর্থ নির্ভর করে।

১. ভারতে পড়াশুনার জন্য সর্বাধিক ১০ লক্ষ টাকা লোন দেওয়া হয়।

২. বিদেশে পড়াশুনার জন্য সর্বাধিক ২০ লক্ষ টাকা লোন দেওয়া হয়।

কোথায় আবেদন করতে হবে :

এই লোনের জন্য ব্যাঙ্ক এবং রাজ্য মাধ্যম এজেন্সি যেখানে National Handicapped Finance & Development Corporation (NHFDC) দ্বারা এই লোন সঞ্চালন করা হয়ে সেখানে।

বেশিরভাগ ব্যাংকে এই লোনের ব্যবস্থা আছে। ভারতে এবং বিদেশে স্বীকৃতি পাওয়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরাসরি National Handicapped Finance & Development Corporation (NHFDC) লাগানো আছে।

ওই সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরাসরি আবেদন করা হয়। NHFDC দ্বারা এই লোন দেওয়া হয়। আর আবেদনকারীর আবেদনপত্র সরাসরি NHFDC তে পাঠানো হয়।

কত টাকা ছাড় আছে :

ক) ৪ লক্ষ টাকা পর্যন্ত লোনে কোনো রকম ছাড়ের ব্যবস্থা নেই।

খ) ভারতে পড়াশুনা করলে আর ৪ লক্ষ টাকার বেশি লোন নিলে ৫ শতাংশ ছাড়।

গ) বিদেশে পড়াশুনা করলে আর ৪ লক্ষ টাকার বেশি লোন নিলে ১৫ শতাংশ ছাড়।

সুদের হার কত :

এই লোনের সাধারণ সুদের হার ৪ শতাংশ।

০.৫% ছাড় দেওয়া হয় মহিলা আবেদনকারীদের।

কখন মেটাতে হবে লোন :

১. এই লোন অনুসারে পড়াশুনা শেষ হবার ছয় মাস পরে বা চাকরি পাবার পরে যেটা আগে হবে লোন মেটাতে হবে।

২. লোন মেটাবার তারিখ থেকে ৭ বছরে এই লোন মেটাতে হবে।

এই লোন সম্মন্ধে আরো তথ্য জানার জন্য কাছাকাছি যে কোনো সরকারি ব্যাংকের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। এছাড়া স্বীকৃতি পাওয়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেখানে পড়াশুনা করতে চান সেখানেও এই বিষয়ে তথ্য পেয়ে যাবেন।

আমাদের এই তথ্য আপনাদের সাহায্য করবে, যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই সকলের থাকে শেয়ার করবেন। আর এই ধরণের আরো তথ্যের জন্য নজর রাখবেন আমাদের ওয়েবসাইটে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *