মিথ্যে বিজ্ঞাপনের জন্য ব্রান্ডের উপরে মামলা কিভাবে করবেন? আইনি নিয়ম জানুন

How to Sue for False Advertising in Bengali: কোন ব্রান্ড বা কোম্পানি মিথ্যে বিজ্ঞাপন দিচ্ছে? এই বিরুদ্ধে মামলা করতে চান? আসুন জেনে নিন যে কোন মিথ্যে বিজ্ঞাপনের জন্য ব্রান্ডের উপরে মামলা করার আইনি নিয়ম ও পদ্ধতি।

বিজ্ঞাপনের কথা নতুন করে আর বলার কিছু নেই। বিজ্ঞাপনের উপর নির্ভর করে আজকের সম্পূর্ণ কেনাকাটা, মানুষের পছন্দ এবং তার সাথে সাথে সেন্টিমেন্ট জড়িয়ে রয়েছে। যা কিনা বিশেষ করে বাজারে যে ফর্সা করা ক্রিমের বিজ্ঞাপন চলছে সেটা সবচেয়ে বেশি মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। তবে আপনি কি মনে করেন, এমন বিজ্ঞাপন যেটা ব্রান্ড অথবা ক্রিম দিয়ে থাকে সেটা আদৌ কি ত্বক ফর্সা করতে পারে ?

এছাড়া গ্রাহকদের পছন্দের উপরে বিজ্ঞাপন খুবই ভালভাবে তার প্রভাব বিস্তার করে ফেলেছে। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে প্রতিনিয়ত আমাদের দিকভ্রম করা / বিভ্রান্তিকর বিজ্ঞাপন গুলির সাথে আপনারা ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে পড়েছি। উদাহরণ হিসেবে ফেয়ারনেস ক্রিমের কথাই বলা হলো।

যা কিনা কেবলমাত্র বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে ফর্সা হওয়ার প্রতিশ্রুতিই নয়, তার সাথে সাথে যাদের গায়ের রং অনেকটাই শ্যামলা বরণ তাদেরকে অপমানিত করা হয় বলতে গেলে, তার সাথে সাথে তাদের মনে আঘাতও দেওয়া হয়।

মিথ্যে বিজ্ঞাপনের জন্য ব্রান্ডের উপরে মামলা কিভাবে করবেন? আইনি নিয়ম জানুন
মিথ্যে বিজ্ঞাপনের জন্য ব্রান্ডের উপরে মামলা কিভাবে করবেন? আইনি নিয়ম জানুন

এছাড়া এমন ভাবেই বিজ্ঞাপন তৈরি করা হয়, যেখানে দেখানো হয় যে সেই ক্রিম ব্যবহার করার ফলে আস্তে আস্তে কেমন পিরামিড আকারে ত্বকের রঙ হালকা হতে হতে ফর্সা হয়ে গিয়েছে। তার সাথে সাথে এমন কথা বলতে শোনা যায় যে, “কেবল মাত্র চার সপ্তাহের মধ্যে আপনার ত্বক এমন হয়ে যাবে, সুন্দর হয়ে যাবে।”

অনেকেই তো কোন ব্রান্ড অথবা ক্রিম এর উপরে লক্ষ্য না দিয়েই শুধুমাত্র বিজ্ঞাপনের মোহে পড়ে এমন ক্রিম কিনে নিজের ত্বকের বারোটা বাজিয়েছেন, কিন্তু আপনি কি বিশ্বাস করেন, যে এমন ক্রিম ব্যবহার করার ফলে সত্যিই বাস্তবে আপনি সম্পূর্ণ রূপে ফর্সা হয়ে যাবেন ?

স্বাস্থ্য আর পুষ্টি সম্বন্ধিত উৎপাদিত দ্রব্য, ওষুধপত্র এর ক্ষেত্রে এরকম বিভ্রান্তিকর বিজ্ঞাপন উপভোক্তা দের জন্য খুবই খারাপ পরিণতি ডেকে নিয়ে আসতে পারে।

এই বিজ্ঞাপন শুধুমাত্র উপভোক্তার অধিকার লংঘনই করে না, তার সাথে সাথে তার জীবন যাত্রাকে একটি সীমা পর্যন্ত প্রভাবিত করতে পারে।

মিথ্যে প্রতিশ্রুতি, অতিরঞ্জিত পরিনাম, গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রকাশ না করার মধ্যে দিয়ে এই বিজ্ঞাপন সেই দ্রব্যের প্রচার করে থাকে অথবা বিক্রি বাড়িয়ে থাকে।

বিশ্বাস রূপে এরকম বিজ্ঞাপনের জন্য যাতে এমন বিজ্ঞাপন না হয়, সেটি নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য কোন ব্যাপক আইন-কানুন নেই, তবে আদালতে সরকার বিচারালয় দ্বারা নিয়ন্ত্রিত করা হয়েছিল, তার সাথে সাথে বিভিন্ন রকমের সমস্যা এবং মামলার উপর ভিত্তি করে তার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল।

এ ছাড়া এখন উপভোক্তা ড্রাগ এন্ড ম্যাজিক রেমেডিজ (আপত্তিজনক বিজ্ঞাপন) অধিনিয়ম কেবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক অধিনিয়ম 1955 খাদ্য সুরক্ষার মান প্রাধিকরণ বীমা নিয়ামক আর বিকাশ প্রাধিকরণ এর অনুসারে মিথ্যে আর বিভ্রান্তিকর বিজ্ঞাপনের জন্য অভিযোগ।

আর সমস্যার সমাধানের জন্য বিভিন্ন আইনি প্লাটফর্মে আপনি যোগাযোগ করতে পারেন। ভারতীয় দর্শন সঞ্চার নিয়ামক প্রাধিকরণ আর ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাংক দ্রব্যের প্রকৃতির আধারের উপর যার জন্য অবৈধ ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

বিজ্ঞাপনের মান পরিষদ এ এস সি আই (ASCI) তার নিয়মের লংঘন করা কোম্পানি গুলিকে নিয়ে আসা হয়েছে এই পর্যায়ে। এ এস সি আই (ASCI) এর কর্তব্য হলো বিজ্ঞাপন প্রচার কোড এর উপর নির্ভর করে অভিযোগ এর নিষ্পত্তি করা।

ASCI থেকে প্রথমে অভিযোগ কিভাবে করবেন? 

নিম্নলিখিত কিছু বিষয়ের উপরে খেয়াল রেখে আপনি অভিযোগ করতে পারেন :-

১) মহাসচিব বিজ্ঞাপন পরিষদ 219 বোম্বে মার্কেট, তারদেও মুম্বাই- 400034 এর সম্বন্ধিত পত্রের মাধ্যমে।

২) এই ই-মেইল এড্রেসে ইমেইল পাঠিয়েও অভিযোগ করতে পারেন:- [email protected], [email protected]

৩) আপনি www.ascionline.in এই ওয়েবসাইটের উপরেও অনলাইনের মাধ্যমে অভিযোগ দায়ের করতে পারেন।

৪) এছাড়া অভিযোগ দায়ের করার জন্য আপনি এ এস সি আই (ASCI) এর এই সমস্ত টোল ফ্রি নাম্বার এ কল করতে পারেন:- 022 23513 982, 022 2352 1066 অথবা 1800 2227 24 (টোল ফ্রি নাম্বার)।

অভিযোগ কে করতে পারবেন?

১) সরকারি আধিকারিক, উপভোক্তা সমূহ এবং সাধারন জনগন।

২) ASCI বোর্ড, সি সি সি CCC  অথবা সচিবালয় এর সদস্য, ওদের থেকে ভারী অভিযোগ দায়ের করা যেতে পারে।

৩) ইন্ট্রো উদ্যোগ অথবা একজন বিজ্ঞাপনদাতা দ্বারা অন্য কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা।

উপভোক্তা সংরক্ষণ অধিনিয়ম, 1986 অনুসারে অভিযোগ: 

যে কোনো উপভোক্তা অথবা গ্রাহক যিনি কিনা বিভ্রান্তিকর বিজ্ঞাপনের শিকার হয়েছেন, তিনি উপভোক্তা সংরক্ষণ অধিনিয়ম, 1986 অনুসারে এই ভাবে অবৈধ ব্যবসার বিরুদ্ধে সঠিক নিবারণের জন্য অভিযোগ করতে পারেন এবং বলতে গেলে অনুরোধ করতে পারেন। সেটি নিম্নে আলোচনা করা হলো কীভাবে আপনি এর সমাধান পেতে পারেন:-

  • মূল্যের সমান সমান টাকা রিফান্ড করা।
  • কোনরকম ক্ষতি অথবা চোট বা বলতে গেলে সেই দ্রব্যের জন্য বাহ্যিক কোন ক্ষতি যদি হয়ে থাকে তার ক্ষতিপূরণ।
  • বিভ্রান্তিকর বিজ্ঞাপনকে প্রভাবিত না করার জন্য এবং যাতে কোনো রকম প্রভাব বিস্তার না করে তার জন্য বিপরীত পক্ষ কে সংশোধনমূলক বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য আদেশ দেওয়া যেতে পারে।
  • আদালত উপভোক্তা কে দন্ডমূলক ক্ষতি আর মামলা চালানোর খরচ ও দেওয়াতে পারে।

তাহলে বুঝতেই পারছেন যে, এই সমস্ত বিভ্রান্তিকর বিজ্ঞাপন আপনার জীবনে কতটা প্রভাব বিস্তার করে থাকে। তাই সময় থাকতে সচেতন হোন এবং আপনার আশেপাশের মানুষকে সচেতন করুন।

যাতে এমন পরিস্থিতি যেনো না তৈরি হয়। এমন বিজ্ঞাপনের জন্য কোন রকম ক্ষতি হয়ে না যায়, আপনার এবং আপনার পরিবারের সদস্য দের।

তবে অবশ্যই আইন অনুসারে পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন। উপরে দেওয়া ওই সমস্ত যোগাযোগ ব্যবস্থার উপর নির্ভর করতে পারেন। তার সাথে সাথে টোল ফ্রি নাম্বার এ ফোন করেও এইরকম বিভ্রান্তিকর বিজ্ঞাপনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করতে পারবেন খুবই সহজে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *