Annapurna Puja 2024: এই কাজগুলি করলে দেবী অন্নপূর্ণা ও লক্ষ্মী অসন্তুষ্ট হতে পারেন

অন্নপূর্ণা দেবী আমাদের খাদ্য বস্ত্রের দেবী বলা যেতে পারে। এই পুজোর দিন পুজো করলে জীবনে কোনদিনই কোন রকম খাবার ও অর্থের অভাব হবে না। এর পাশাপাশি জীবনে কোনদিনও কোন অন্য বস্ত্রর অভাব হবে না।

শাস্ত্র অনুসারে জানা যায় যে, অন্নপূর্ণা জয়ন্তী উদযাপন করার প্রথা চলে আসছে অনেকদিন আগে থেকে। এটা বিশ্বাস করা হয় যে মা পার্বতী মার্সেষ মাসের পূর্ণিমা তিথিতে পৃথিবীতে অবতারণা করেছিলেন। তাই এই দিনে তার পূজা করলে কখনো অর্থ, শস্য ও বস্ত্রের অভাব হয় না।

অন্নপূর্ণা পূজার দিন এই কাজগুলি করলে দেবী অন্নপূর্ণা ও লক্ষ্মী অসন্তুষ্ট হতে পারেন
অন্নপূর্ণা পূজার দিন এই কাজগুলি করলে দেবী অন্নপূর্ণা ও লক্ষ্মী অসন্তুষ্ট হতে পারেন

এই দিনে রান্নাঘর পরিষ্কার রাখার পাশাপাশি রান্না ঘরের পুজো ও দেওয়া হয়। এমনটাই বিশ্বাস চলে আসছে অনেকদিন আগে থেকে। অন্নপূর্ণা পূজার দিন আরও অন্যান্য নিয়ম নীতি পালন করার পাশাপাশি দেবীকে সন্তুষ্ট করতে আপনাকে কিছু প্রাথমিক বিষয় মাথায় রাখতে হবে।

অন্নপূর্ণা পূজার দিন ভুল করেও যে কাজ গুলি করবেন না:

১) খাবার কে কখনোই অপমান করা যাবে না:

যে খাবার আমাদের জীবন দান করে এবং অন্নপূর্ণা দেবীর কৃপায় সেটি আমাদের জীবনে বজায় থাকে। সেই খাবার কে কখনো অপমান না করাই উচিত। খাবার কে সম্মান জানানো এবং নষ্ট না করা এগুলো কিন্তু খুবই ভালো লক্ষণ, আর এতে অন্নপূর্ণা দেবী ও মা লক্ষ্মী সন্তুষ্ট হন। যে ব্যক্তি এই দিনে অন্ন এর অপমান করে তার বাড়ির শস্যভান্ডার সর্বদাই শূন্য থাকে।

২) বাড়িতে আসা অতিথিদের অপমান করবেন না:

অতিথি মানেই নারায়ন, তাই বাড়িতে আসা কোন ব্যক্তি কে কোন ভাবে অপমান করা যাবে না। এ ছাড়া কেউ যদি আপনার বাড়িতে আপনার সাথে দেখা করতে আসে, তবে তাকে খাওয়ার পর পাঠানো উচিত। তাকে অবশ্যই খেতে বলাটা আপনার যেমন ভদ্রতার পরিচয় প্রকাশ পায়, তেমনি দেবী লক্ষ্মী ও অন্নপূর্ণা প্রসন্ন হন।

৩) লবণ দান করবেন না:

সারা বছরের মতো সময়ে আপনি যেকোনো সময় কারো প্রয়োজনে লবন দান করতেই পারেন। তবে এই শুভদিনে লবণ দান করা একেবারেই উচিত নয়। আপনার এই দিনের খাদ্য দান করা উচিত। কারণ বিশ্বাস করা হয় যে, এই দিনে খাবার দান করা খুবই শুভ। যেমন লবণ দান করা উচিত নয়, তেমনি কারো কাছ থেকে লাবণ নেওয়াও উচিত নয়।

অন্নপূর্ণা পূজার দিন কি করবেন আর কি করবেন না

৪) এই শুভ দিনে আমিষ খাওয়া থেকে বিরত থাকুন:

অন্নপূর্ণা পূজার দিনে নিরামিষ খাবার খাওয়াটা খুবই শুভ বলে মনে করা হয়। তাই এই দিনে বাড়িতে কোনরকম পেঁয়াজ, রসুন বা আমিষ খাবার তুলবেন না। এতে মা অন্নপূর্ণা রেগে যাবেন।

৫) পরিছন্নতা বজায় রাখুন:

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা সকলেই পছন্দ করেন, তেমনি দেবদেবীদের আরাধনার ক্ষেত্রেও এই দিকটা বিশেষভাবে খেয়াল রাখা জরুরী। অন্নপূর্ণা পূজার দিন রান্না ঘরের পরিচ্ছন্নতার দিকে বিশেষভাবে নজর দেওয়া হয়। এই দিনে ঘর নোংরা একেবারে রাখা যাবে না। এ ছাড়া আবার অন্নপূর্ণা পূজা করলে খাবার তৈরি করুন, সেক্ষেত্রেও পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখুন।

৬) মিথ্যা কথা বলবেন না:

মিথ্যা কথা বলা অথবা কাউকে প্রতারণা করা একেবারেই অপছন্দ করেন মা লক্ষ্মী। যারা এমন কাজ করে থাকেন তারা কখনোই সুখী হতে পারেন না। মা লক্ষ্মীকে অসন্তুষ্ট করা অন্নপূর্ণা কে অসন্তুষ্ট করা মানে দেবীর আশীর্বাদ থেকে এবং সমৃদ্ধির ছায়া থেকে বঞ্চিত হওয়া।

৭) অন্যকে শোষণ না করা:

যারা অন্য কোন ব্যক্তিকে কষ্ট দিয়ে কিংবা শোষণ করে তাদের থেকে কোন কিছু হাসিল করার চেষ্টা করেন সে ক্ষেত্রে সেই ব্যক্তি কখনোই দেবী লক্ষ্মী কে সন্তুষ্ট করতে পারবেন না।

কারণ অন্যকে শোষণ করে কিংবা কারো কাছ থেকে কিছু কেড়ে নিয়ে ধনী হওয়া গেলেও সেই সুখ খুব বেশি দিন বজায় থাকে না। কিছু সময়ের মধ্যে তার প্রতিফল পেতেই হবে। সেই কারণে এগুলি করা থেকে বিরত থাকুন।

৮) খাবার নষ্ট করবেন না:

খাবার আমাদের যেমন সব সময় কপালে জুটছে এমন অনেকে আছে যাদের একবেলা খাবার জোগাড় করতে গিয়ে শরীরের রক্ত জল করতে হয়। বিনা কারণে খাবার নষ্ট করা একেবারেই পছন্দ করেন না মা লক্ষ্মী এবং অন্নপূর্ণা দেবী।

অতএব বলাই যায় যারা কারণে অকারনে অন্ন নষ্ট করে থাকেন, তারা কখনোই সমৃদ্ধির মুখ দেখতে পারেন না। তাই অন্নকে সম্মান করুন, যতটা পারবেন ততটাই খাওয়ার চেষ্টা করুন, বেশি খাবার নিয়ে সেটি নষ্ট করবেন না।

৯) সন্ধ্যায় ঘর পরিষ্কার করা যাবে না:

সন্ধ্যা বেলায় মা লক্ষ্মীর আগমন ঘটে প্রতিটি বাড়িতে, এমনটা বিশ্বাস করা হয় শাস্ত্র অনুসারে। তাই এই সময় কখনই ঘর পরিষ্কার করা উচিত নয়, কারণ এতে মা লক্ষ্মী রুষ্ট হন। সুতরাং সূর্যাস্তের আগেই ঘর পরিষ্কারের সমস্ত কাজ সেরে নেওয়াটাই ভালো।

১০) রাতে রান্নাঘর নোংরা করে না রাখা:

রাতে কখনই রান্নাঘর নোংরা করে রাখা উচিত নয়। যদি এঁটো থালাবাসন থেকে থাকে তাহলে সেগুলি সারা রাতের জন্য একেবারে ফেলে না রেখে সেগুলি ধুয়ে রেখে ঘুমাতে যাওয়া শুভ বলে মনে করা হয়। কারণ রাতে রান্না ঘর নোংরা করে রাখলে দেবী অন্নপূর্ণা ও মা লক্ষ্মী রুষ্ট হন।

বাস্তু মতেও গৃহস্ত ঘরে বিভিন্ন রকমের সমস্যা দেখা দেয়। এর পাশাপাশি সংসারে নেতিবাচক শক্তি ও বিরাজ করে। সবদিক থেকে শুভ ফল পাওয়ার জন্য রাতে কখনই রান্নাঘর নোংরা করে রাখবেন না।

⭐ এই সাধারণ জিনিস গুলি মেনে চলার পাশাপাশি ঘরবাড়ি যেমন পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকে। তেমনি দেবীর আশীর্বাদ বর্ষিত হয় সর্বদাই। তার পাশাপাশি বাড়ির সকল সদস্যের সুস্থ অসুস্থতা নির্ভর করে এই সমস্ত স্বাভাবিক ও সামান্য জিনিস গুলির মধ্যে দিয়ে। অন্নপূর্ণা দেবী এবং মা লক্ষ্মীকে সন্তুষ্ট করতে এই সাধারণ নিয়ম গুলি মেনে চলতে আপনার কোন রকম কষ্ট হবে না আশা করা যায়।

Leave a Comment